তুরুস্কে প্রেসিডেন্ট পদে এরোদাগানের বিপুল বিজয়

।। স্টাফ করেসপন্ডেন্ট ।।

তুরুস্কে এক সাথে অনুষ্ঠিত হয়েছে প্রেসিডেন্ট এবং সংসদ নির্বাচন । তুরুস্কের সাংবিধানিক কাঠামোতে পরিবর্তন আনার পর এটিই প্রথম নির্বচন। প্রেসিডেন্ট পদে ৫৩% ভোট পেয়ে বিপুল ব্যাবধানে জয়ী হয়েছেন বর্তমান প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইপে এরোদাগান।তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী মুহারম ইঞ্জে পেয়েছেন ৩১% ভোট।

সংসদ নির্বাচনেও এরোদাগের দল একে পার্ট  ৫৫% ভোট পেয়ে জয়ী হয়েছেন।

তবে পার্লামেন্টে একে পার্টির একাধিপত্যের অবসান হয়েছে। এখন পার্লামেন্টে সংখ্যাগরিষ্ঠতার ভিত্তিতে কোনও সিদ্ধান্ত নিতে তাদের জোট সঙ্গী এমএইচপির সমর্থন প্রয়োজন হবে।

আর কোনও সাংবিধানিক পরিবর্তনের জন্য প্রয়োজনীয় সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেতে প্রধান বিরোধী জোট সিএইচপি অথবা কুর্দি সমর্থিত দল এইচডিপির সমর্থন প্রয়োজন হবে।

এককভাবে ৫০ শতাংশের বেশি ভোট না পেলে এরদোগানকে দ্বিতীয় দফায় ভোটে অবতীর্ণ হতে হতো। তখন ১৫ দিনের ব্যবধানে মুহররম এনজের সঙ্গে এককভাবে লড়াইয়ে নামতে হতো তাকে। এখন সরাসরি প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে বিজয়ী হওয়ায় তুরস্কের বিভিন্ন শহরে এরদোগানের সমর্থকরা আনন্দ মিছিল করছে।

রাতে তারা আলো জালিয়ে নেচে গেয়ে বিজয় উদযাপন করছে।    তুরস্কে ক্ষমতাসীন রিসেপ তায়েপ এরদোগান বিপুলভাবে জনপ্রিয় হলেও এবারই তাকে সবচেয়ে শক্ত প্রতিদ্বন্দ্বিতার মুখে পড়তে হবে বলে বিশ্লেষকরা বলছিলেন। কারণ ইনজের সাম্প্রতিক জনসভাগুলোয় ব্যাপক লোকসমাগম হওয়ায় সেই ধারণা জোরদার হয়েছিল। এরদোগান প্রেসিডেন্ট হিসেবে দ্বিতীয় মেয়াদের জন্য প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

তুরস্কের সংবিধানে তিনি যে পরিবর্তন এনেছেন তাতে প্রেসিডেন্টকে নতুন এবং ব্যাপক ক্ষমতা দেয়া হয়েছে। এরদোগান ২০১৪ সালে প্রেসিডেন্ট হবার আগে ১১ বছর প্রধানমন্ত্রী ছিলেন।

  এর মধ্যেই একে পার্টির সরকার উৎখাতের প্রচেষ্টা হিসেবে ২০১৬ সালে তুরস্কে একটি ব্যর্থ সামরিক অভ্যুত্থান হয়। এরপর থেকেই দেশটিতে জরুরি অবস্থা চলছে।

বিবিসি ও আল জাজিরা ও রিসেপ তাইপের ফেসবুক অবলম্বনে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *