বর্ষাকালে যেমন পোশাক বাছাই করবেন

সায়মুন জিদনী ( জীবন যাপন ডেস্ক)

এখন বর্ষাকাল। কখনো মেঘাচ্ছন্ন আকাশ, কখনো  ঝুম বৃষ্টি আবার কখনো বা ঝিলমিল রোদের ছোটাছুটি খেলা। মেঘ-বৃষ্টির এ খেলা কর্মব্যস্ততার কোথাও থেমে নেই। তাই এ সময়  আবহাওয়ার সাথে মিল রেখে প্রয়োজন উপযোগী পোশাক।

বর্ষায় ঘর থেকে বেরুলেই থাকে বৃষ্টিতে ভেজার সম্বাবনা। তাই এ সময় পোশাক নির্বাচনের ক্ষেত্রে গুরুত্ব দেয়া জরুরি।এক্ষেত্রে এমন পোশাক বাছাই করা উচিত যা আরামদায়ক ও ফ্যাশনেবল ।

আমাদের দেশের আবহাওয়া অনুযায়ী সুতি কাপড় সবচেয়ে বেশি আরামদায়ক। তবে এ ধরনের পোশাক বৃষ্টিতে ভিজলে সহজে শুকাতে চায় না অথবা শুকালেও এ থেকে গুমোট গন্ধ বা ছোট ছোট দাগ পরার ভয় থাকে। তাই সুতি কাপড়ের পরিবর্তে সিল্ক, জরজেট বা সিনথেটিক কাপড় পরা যেতে পারে।

অসময়ে চুল পাকার কারণ ও সমাধান

যারা সিনথেটিক কাপড়ে স্বচ্ছন্দ বোধ করেনা তারা লিলেন, হাফ সিল্ক বা এলিকন কাপড় ব্যবহার করতে পারেন।

কাপড়ের রং নিয়ে ভাবছেন? এ সময় যতটা সম্ভব রঙিন বা উজ্জন পোশাক পরিধান করাই শ্রেয়। নীল, আকাশী, কমলা, মেজেন্টা, বেগুনী, লাল, হলুদ এ রং গুলো চোখে পরার মতো। মেঘ বা রোদ যে কোনো সময়েই মানিয়ে যায় এ ধরনের রং।

এ ঋতুতে মেয়েরা সাধারণত ঢিলেঢালা পোশাক যেমন- সেলোয়ার কামিজ, ফতুয়া, প্যান্ট, প্লাজো, ট্রাউজার সহ শাড়ি পরতে বেশি স্বচ্ছন্দ বোধ করে। মেয়ে শিশুদের জন্য আরামদায়ক ফতুয়া, স্কার্ট ও ছেলে শিশুদের জন্য শার্ট, প্যান্ট ভালো হবে। ছেলেরা এ সময় উজ্জ্বল শার্ট, ফতুয়া ও প্যান্ট পরতেই পছন্দ করে।

জেনে নিন ঠান্ডা পানির যতো উপকারিতা

সময়োপযোগী আপনার পছন্দের পোশাক পাবেন আপনার হাতের কাছের যে কোন ব্র্যান্ডের দোকানে। ফ্যাশন হাউসগুলো এসময় নানা ধরনের সময়োপযোগী  পোশাক তাদের কালেকশনে যোগ করেছে। নামীদামী ফ্যাশন হাউসগুলোর পাশাপাশি যে কোন ধরণের শপিংমলে গেলেই আপনার চোখে পরবে বিশেষ ধরণের এ পোষাক। যাদের দাম নিয়ে তেমন সমস্যা নেই তারা যেকোন হাঊজ থেকেই সংগ্রহ করতে পারবেন। আর যাদের দাম নিয়ে একটূ সমস্যা আছে তারা চলে যেতে পারেন গাউছিয়া, নিউমার্কেট কিংবা আজিজ সুপার মার্কেট সহ আরও অনেক জায়গায়।

দিনে ৩ টি ডিম খাওয়ার উপকারিতা

বানিমি/আজ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *